সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কৌশল

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং স্ট্রাটেজি

আপনার সোশ্যাল মিডিয়া উপস্থিতি বিকাশের জন্য নয়টি সহজ পদক্ষেপ

 

ধাপ # ১

সামঞ্জস্যপূর্ণ লক্ষ্য বেছে নিন

আপনার কৌশল যত বেশি সুনির্দিষ্ট হবে, কার্য সম্পাদন তত বেশি কার্যকর হবে। লক্ষ্য সেট করুন এবং সফলতার জন্য নিজের সেট আপ করা সঠিক মেট্রিক্স ট্র্যাক করুন।

S.M.A.R.T লক্ষ্য সেট করুন। একটি বিজয়ী কৌশল তৈরির প্রথম ধাপ হল আপনার উদ্দেশ্য এবং লক্ষ্য স্থাপন করা। লক্ষ্য ছাড়া, আপনার সাফল্য পরিমাপ করার কোন উপায় নেই এবং রিটার্ন অন ইনভেস্টমেন্ট (ROI) ।

আপনার প্রতিটি লক্ষ্য হওয়া উচিত:

Specific

(নির্দিষ্ট)

Measurable

(পরিমাপযোগ্য)

Attainable

(অর্জনযোগ্য)

Relevant

(প্রাসঙ্গিক)

Time-bound

(সময় আবদ্ধ)

 

এটি S.M.A.R.T. লক্ষ্য ফ্রেমওয়ার্ক। এটি আপনার কার্যক্রমকে গাইড করবে এবং নিশ্চিত করবে যে, আপনি আপনার প্রকৃত ব্যবসায়িক ফলাফলের দিকে যাচ্ছেন। এখানে একটি S.M.A.R.T এর উদাহরণ দেওয়া হল। লক্ষ্য: “আমরা কাস্টমার সাপোর্টের জন্য ফেসবুক পেজ ব্যবহার করব এবং কোয়াটার শেষে আমাদের এভারেজ রেসপন্স রেট ১ ঘন্টার নিচে নামিয়ে আনব।”

 

অর্থপূর্ণ মেট্রিক্স ট্র্যাক করুন

ফলোয়ার এবং লাইকের সংখ্যার মতো ভ্যানিটি মেট্রিক্স ট্র্যাক করা সহজ, কিন্তু তাদের আসল মান প্রমাণ করা কঠিন। তাই এর পরিবর্তে, এনগেজমেন্ট, ক্লিক-থ্রু এবং কনভার্সন রেটের মতো বিষয়গুলিতে ফোকাস করুন। আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্কের জন্য বিভিন্ন লক্ষ্য ট্র্যাক করতে পারেন, অথবা প্রতিটি নেটওয়ার্কের জন্য আলাদা লক্ষ্যও ব্যবহারও করতে পারেন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটে ট্রাফিক আনতে লিংকডিন ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি ক্লিক-থ্রু পরিমাপ করবেন। যদি ইন্সটাগ্রামে ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেসের জন্য হয়, তাহলে আপনি ইন্সটাগ্রাম স্টোরির ভিউয়ের সংখ্যা ট্র্যাক করতে পারেন। এবং যদি আপনি ফেসবুকে বুস্ট করেন, কস্ট-পার-ক্লিক (CPC) হল একটি সাধারণ সাফল্যের পরিমাপ।

সোশ্যাল মিডিয়ার লক্ষ্যগুলি আপনার সামগ্রিক মার্কেটিংয়ের উদ্দেশ্যগুলির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়া উচিত। এটি উদ্ধতনকর্তৃপক্ষের কাছে আপনার খারচের হিসাব এবং কাজের ফলাফল দেখানো সহজ করে তোলে।

ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য সোশ্যাল মিডিয়া লক্ষ্য মেট্রিক্স
ব্র্যান্ড বাড়ানো অ্যাওয়ারনেস

(এই মেট্রিক্স আপনার বর্তমান এবং সম্ভাব্য অডিয়েন্সদের আলোকিত করে)

ফলোয়ার, শেয়ার, ইত্যাদি
গ্রাহকদের অ্যাডভোকেটে পরিণত করা এনগেজমেন্ট

(এই মেট্রিক্সগুলি দেখায় কিভাবে অডিয়েন্সরা আপনার কনটেন্টরন সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করছে)

কমেন্টস, লাইক, @মেনশন্স, ইত্যাদি
লিড এবং বিক্রয় পরিচালনা কনভার্সন

(এই মেট্রিক্সগুলি আপনার সোশ্যাল এনগেজমেন্টের কার্যকারিতা দেখায়)

ওয়েবসাইট ক্লিক, ইমেল সাইনআপ, ইত্যাদি
গ্রাহকদের ধরে রাখা ব্যস্থা উন্নত করা ভোক্তা

(এই মেট্রিক্সগুলি প্রতিফলিত করে যে সক্রিয় গ্রাহকরা আপনার ব্র্যান্ড সম্পর্কে কীভাবে চিন্তা করেন এবং অনুভব করেন)

টেস্টিমোনিয়াল, সোশ্যাল মিডিয়া সেন্টিমেন্ট, গড় রেসপন্স টাইম (সোশ্যাল কাস্টমান সার্ভিস/সাপোর্টের জন্য) ইত্যাদি।

 

সোশ্যাল মিডিয়ার জন্য কমপক্ষে তিনটি লক্ষ্য লিখে একটি সফল সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং প্ল্যান তৈরি করা শুরু করুন৷

লক্ষ্য # ১:
লক্ষ্য # ২:
লক্ষ্য # ৩:

 

ধাপ # ২

আপনার অডিয়েন্সদের সম্পর্কে সব কিছু জানুন যা আপনি তাদের জন্য করতে পারবেন

আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়া লিসেনিংয়ে যুক্ত না থাকেন, তাহলে আপনি আপনার ব্যবসার কৌশল তৈরি করছেন পুরোপুরি অন্ধকারে থেকে — এবং আপনি সক্রিয়ভাবে অনলাইনে আপনার বা আপনার ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে কথা বলছেন এমন সত্যিকারের ব্যক্তিদের কাছ থেকে কার্যকর ইনসাইটস মিস করছেন। আপনার অডিয়েন্স এবং তাদের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আপনার বোঝাপড়া কীভাবে শুরু করবেন এবং তৈরি করবেন তা জানুন।

অডিয়েন্সের পার্সোনা তৈরি করুন
আপনার অডিয়েন্স কে এবং তারা সোশ্যাল মিডিয়াতে কী দেখতে চায় তা জানা গুরুত্বপূর্ণ। এইভাবে আপনি এমন কনটেন্ট তৈরি করতে পারেন যা তারা পছন্দ করবে, মন্তব্য করবে এবং শেয়ার করবে। আপনি যদি আপনার ব্যবসার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া ফলোয়ারদের গ্রাহকে পরিণত করতে চান তবে এটিও গুরুত্বপূর্ণ।
যখন আপনার টার্গেট কাস্টমারের কথা আসে, তখন তাদের সম্পর্কে আপনার বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস জানা উচিত:

         
বয়স অবস্থান গড় আয় সাধারণ পেশাগত অবস্থা বা ইন্ডাস্ট্রি আগ্রহ

আপনার ফ্যান, ফলোয়ার এবং গ্রাহকদের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের প্রকৃত চাওয়া ও চাহিদার সম্পর্কে জানলে আপনি বুঝতে পারবেন কিভাবে তাদের টার্গেট করে সোশ্যাল মিডিয়াতে এনগেজ করা যায়।

তথ্য সংগ্রহ করুন
অনুমান করবেন না। মিলেনিয়ালদের চেয়ে বেবি বুমারদের কাছে পৌঁছানোর জন্য ফেসবুক একটি ভাল নেটওয়ার্ক মনে করেন? ঠিক আছে, সংখ্যাগুলি দেখায় যে ফেসবুকের বৃহত্তম বয়স জনসংখ্যার প্রকৃতপক্ষে ৩০-৪৯।

আপনার ফলোয়ার কারা, তারা কোথায় থাকে এবং তারা কীভাবে সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনার ব্র্যান্ডের সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করে সে সম্পর্কে প্রচুর মূল্যবান তথ্য সরবরাহ করতে পারে সোশ্যাল মিডিয়া এনালিটিক্স। এই ইনসাইটসগুলি আপনাকে আপনার কৌশল পরিমার্জিত করতে এবং আপনার অডিয়েন্সদের আরও ভালোভাবে টার্গেট করার সুযোগ দেয়।

ভারতের ট্যাক্সি বুকিং অ্যাপ এবং সফটওয়্যার জুগনু (Jugnoo), ফেসবুক অ্যানালিটিক্স ব্যবহার করে জেনেছে যে তাদের ৯০% ব্যবহারকারী যারা অন্য গ্রাহকদের রেফার করেছে তাদের বয়স ১৮- থেকে ৩৪ বছরের মধ্যে, এবং সেই গ্রুপের ৬৫% অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করছে। তারা তাদের বিজ্ঞাপনগুলিকে টার্গেট করার জন্য সেই তথ্য ব্যবহার করেছে, যার ফলে প্রতি রেফারেলে ৪০% কম খরচ হয়েছে৷

 

ধাপ # ৩

আপনার প্রতিযোগীদের সম্পর্কে জানুন

সম্ভাবনা হল আপনার প্রতিযোগীরা ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করছে, এবং এর মানে হল তারা যা করছে তা থেকে অনেক কিছু জানতে পারবেন।

প্রতিযোগিতামূলক বিশ্লেষণ করুন
প্রতিযোগিতামূলক বিশ্লেষণ আপনাকে প্রতিযোগিতাটি কারা এবং তারা কী কী ভালো করছে বা খারাপ করছে তা বোঝার সুযোগ দেয়। আপনার ইন্ডাস্ট্রিতে কী প্রত্যাশিত তা সম্পর্কে আপনি ভাল ধারণা পাবেন, যা আপনাকে আপনার নিজস্ব সোশ্যাল মিডিয়া গোলগুলি সেট করতে সহায়তা করবে।

এটি আপনাকে সুযোগ-সুবিধাগুলি চিহ্নিত করতেও সহায়তা করবে। উদাহরণস্বরূপ, হতে পারে আপনার প্রতিযোগীদের মধ্যে একজন ফেসবুকে প্রভাবশালী, কিন্তু টুইটার বা ইন্সটাগ্রামে সামান্য এক্টিভিটি করেছেন। প্রভাবশালী খেলোয়াড়ের কাছ থেকে ফ্যানদের জয় করার চেষ্টা না করে আপনি হয়ত সেই নেটওয়ার্কগুলিতে ফোকাস করতে চাইতে পারেন যেখানে আপনার অডিয়েন্সদের কম পরিষেবা দেওয়া হয়।

সোশ্যাল মিডিয়া লিসেনিং ব্যবহার করুন
সোশ্যাল লিসেনিং আপনার প্রতিযোগীদের উপর নজর রাখার আরেকটি উপায়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রতিযোগী কোম্পানির নাম, অ্যাকাউন্ট হ্যান্ডেল এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক কিওয়ার্ড অনুসন্ধান করুন। তারা কী শেয়ার করছে এবং অন্য লোকেরা তাদের সম্পর্কে কী বলছে তা খুঁজে বের করুন।

আপনি ট্র্যাক করার সময়, আপনি চ্যানেলগুলি যেভাবে ব্যবহার করা হয় তাতে পরিবর্তন লক্ষ্য করতে পারেন। অথবা, আপনি একটি নির্দিষ্ট পোস্ট বা ক্যাম্পেইন দেখতে পারেন যা সত্যিই নিশানায় আঘাত করে — বা সম্পূর্ণ বোমা।

আপনি রিয়েল-টাইমে প্রাসঙ্গিক কীওয়ার্ড এবং অ্যাকাউন্টগুলি সহজেই অডিট করতে লিসেনিং স্ট্রিম সেট আপ করতে হুসেট (Hootsuite)-এর মতো সামাজিক মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট টুল ব্যবহার করতে পারেন।

ধাপ # ৪

সোশ্যাল মিডিয়া অডিট করুন

আপনি যদি ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে থাকেন তবে এখন পর্যন্ত আপনার সকল প্রচেষ্টার স্টক নিন। নিজেকে নিম্নলিখিত প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন:

 

 

কী কাজ করছে, আর কী নয়?

 

 

 

কে বা কারা আপনার সাথে এনগেজ?

 

 

আপনার টার্গেট অডিয়েন্স কোন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে?

 

 

কীভাবে আপনার সোশ্যাল মিডিয়া উপস্থিতি প্রতিযোগীদের সাথে তুলনা করেন?

 

 

এই তথ্য সংগ্রহ করার পরে, আপনি উন্নতি করার উপায়গুলি নিয়ে কাজ শুরু করুন।

আপনার প্রতিটি সোশ্যাল অ্যাকাউন্ট কী উদ্দেশ্যে কাজ করে তার একটি পরিষ্কার ছবি আপনার নিরীক্ষায় নেওয়া উচিত। কোন অ্যাকাউন্টের উদ্দেশ্য পরিষ্কার না হলে, সেটি রাখা মূল্যবান কিনা তা নিয়ে ভাবুন করুন।

আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করতে, নিজেকে নিম্নলিখিত প্রশ্নগুলি জিজ্ঞাসা করুন:

আমার অডিয়েন্স এখানে?

 

যদি তাই হয়, তারা কিভাবে এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করছে?

 

আমি কি আমার লক্ষ্য অর্জনে জন্য এই অ্যাকাউন্টটি ব্যবহার করতে পারি?

 

 

এই কঠিন প্রশ্ন জিজ্ঞাসা আপনাকে আপনার স্ট্রাটেজিতে ফোকাস রাখতে সাহায্য করবে।

ফেক অ্যাকাউন্ট আছে কিনা দেখুন
অডিট চলাকালীন, আপনি আপনার ব্যবসার নাম বা আপনার পণ্যের নাম ব্যবহার করে ফেক অ্যাকাউন্ট আছে কিনা খুঁজে দেখতে পারেন।

এই প্রতারকগুলি আপনার ব্র্যান্ডের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে – কিছু মনে করবেন না, তারা আপনার যে ফলোয়ারদের ক্যাপচার করছে তা কিন্তু আপনার হওয়া কথা ছিল৷

এই সব অ্যাকাউন্টগুলিতে রিপোর্ট করুন।

আপনার ফলোয়ারদের আপনার সঠিক একাউন্ট চেনানোর জন্য আপনি আপনার অ্যাকাউন্টগুলি ভেরিফাই করাতে পারেন।

 

ধাপ # ৫

অ্যাকাউন্ট সেট আপ করুন এবং প্রোফাইল উন্নত করুন

আপনি কোন নেটওয়ার্কগুলিতে ফোকাস করবেন তা নির্ধারণ করুন এবং তারপরে আপনার অ্যাকাউন্টগুলি সেট আপ এবং অপ্টিমাইজ করুন।

কোন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করবেন তা ঠিক করুন

আপনি কোন সামাজিক নেটওয়ার্কগুলি ব্যবহার করবেন তা নির্ধারণ করার সাথে সাথে আপনাকে প্রতিটির জন্য আপনার কৌশল নির্ধারণ করতে হবে।
প্রতিটি নেটওয়ার্কের জন্য একটি মিশন স্টেটমেন্ট লিখুন। আপনাকে একটি নির্দিষ্ট গোলে ফোকাস রাখতে একটি এক-বাক্যের ঘোষণা।

বেনিফিট কসমেটিকসের সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার, অ্যাঞ্জেলা পুরকারো, ইমার্কেটের (eMarketer) কে বলেছেন- “আমাদের মেকআপ টিউটোরিয়ালের জন্য আমরা স্ন্যাপচ্যাট এবং ইনস্টাগ্রাম স্টোরি ব্যবহার করি। অন্যদিকে, টুইটার কাস্টমার সার্ভিসের জন্য।”

হুসুটের নিজস্ব সোশ্যাল টিমও বিভিন্ন ফরম্যাটের জন্য বিভিন্ন উদ্দেশ্যে নেটওয়ার্কগুলি ব্যবহার করে। উদাহরণস্বরূপ, তারা ইনস্টাগ্রামে লাইভ ইভেন্ট বা দ্রুত সোশাল মিডিয়া আপডেটগুলি কভার করার জন্য স্টোরি ব্যবহার করে এবং উচ্চ-মানের শিক্ষামূলক ইনফোগ্রাফিক্স এবং পণ্যের ঘোষণার জন্য ফিড ব্যবহার করে।

উদাহরণ: “আমরা ইমেইল এবং কল ভলিউম কম রাখতে গ্রাহক সহায়তার জন্য টুইটার ব্যবহার করব।”

আরও একটি: “আমরা লিংকডইন ব্যবহার করব আমাদের কোম্পানির সংস্কৃতিকে প্রচার এবং শেয়ার করে নেওয়ার জন্য নিয়োগ এবং কর্মচারীদের সমর্থনে সহায়তা করার জন্য।”

আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলের জন্য একটি দৃঢ় স্টেটমেন্ট তৈরি করতে না পারেন, তাহলে আপনি নিজেকে জিজ্ঞাসা করতে চাইতে পারেন যে এটি মূল্যবান কিনা।

মনে রাখবেন, প্রতিটি নেটওয়ার্কে উপস্থিতি বজায় রাখার চেষ্টা করে নিজেকে প্রসারিত করার চেয়ে কম চ্যানেলগুলি ভালভাবে ব্যবহার করা ভাল।

আপনার প্রোফাইল সেট আপ করুন

আপনি কোন নেটওয়ার্কগুলিতে ফোকাস করবেন তা ঠিক করে নেয়ার পরে, আপনার প্রোফাইল তৈরি শুরু করুন। অথবা বিদ্যমানগুলিকে উন্নত করুন যাতে তারা আপনার কৌশলের সাথে সারিবদ্ধ হয়।

প্রোফাইলের সমস্ত ফিল্ড পূরণ করতে ভুলবেন না
কিওয়ার্ডগুলি অন্তর্ভুক্ত করুন যা লোকেরা আপনার ব্যবসার জন্য অনুসন্ধান করতে ব্যবহার করবে।
নেটওয়ার্ক জুড়ে সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্র্যান্ডিং (লোগো, ছবি ইত্যাদি) ব্যবহার করুন যাতে আপনার প্রোফাইলগুলি সহজেই চেনা যায়
উচ্চ-মানের ছবি ব্যবহার করুন যা প্রতিটি নেটওয়ার্কের জন্য প্রস্তাবিত মাত্রা অনুসরণ করে।

 

ধাপ # ৬

অনুপ্রেরণা খুঁজুন

যদিও আপনার ব্র্যান্ডটি ইউনিক হওয়া গুরুত্বপূর্ণ, আপনি এখনও সামাজিক ক্ষেত্রে দুর্দান্ত অন্যান্য ব্যবসা থেকে অনুপ্রেরণা নিতে পারেন।

সোশাল মিডিয়া সাফল্যের গল্প

আপনি সাধারণত সোশাল নেটওয়ার্কের ওয়েবসাইটের ব্যবসায়িক বিভাগে এগুলি খুঁজে পেতে পারেন। (উদাহরণস্বরূপ, এখানে ফেসবুকের।) https://www.facebook.com/business/success

কেস স্টাডি মূল্যবান ইনসাইটস দিতে পারে যা আপনি আপনার নিজের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যানে প্রয়োগ করতে পারেন

পুরস্কার বিজয়ী অ্যাকাউন্ট এবং প্রচারাভিযান

আপনি তাদের সোশ্যাল মিডিয়া গেমের শীর্ষে থাকা ব্র্যান্ডগুলির উদাহরণগুলির জন্য ফেসবুক অ্যাওয়ার্ডস বা দ্য শর্টি অ্যাওয়ার্ডের বিজয়ীদেরও দেখতে পারেন।

শেখার জন্য এবং হাসির জন্য, ফ্রিজ-ওয়ার্থি দেখুন, হুসুটের পুরষ্কারগুলি সোশ্যাল মিডিয়াতে দুর্দান্ত এবং চতুর জিনিসগুলিকে হাইলাইট করে ব্র্যান্ডগুলিকে দেখায়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনার প্রিয় ব্র্যান্ডগুলি

আপনি সোশ্যাল মিডিয়াতে কাকে অনুসরণ করতে উপভোগ করেন? তারা কী করে যা লোকেদের তাদের কনটেন্টে এনগেজ করতে এবং শেয়ার করতে বাধ্য করে?

উদাহরণস্বরূপ, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক (@natgeo) ইনস্টাগ্রামে সেরাদের মধ্যে একটি, আকর্ষিণীয় ক্যাপশনের সাথে অত্যাশ্চর্য দৃশ্যের সমন্বয়।
এবং Lush North America (@lushcosmetics) টুইটারে সুপেরিয়র কাস্টমার সার্ভিসের একটি দুর্দান্ত উদাহরণ। তারা ২৮০টি অক্ষর ব্যবহার করে অন-ব্র্যান্ড উপায়ে অত্যন্ত চার্মিং ভাবে প্রশ্নের উত্তর দেয় এবং সমস্যার সমাধান করে।

লক্ষ্য করুন যে এই অ্যাকাউন্টগুলির প্রতিটির একটি সামঞ্জস্যপূর্ণ ভয়েস, টোন এবং স্টাইল রয়েছে৷ আপনার ফিড থেকে কী আশা করা যায় তা লোকেদের জানানোর জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ। অর্থাৎ তারা আপনাকে অনুসরণ করবে কেন? এতে তাদের জন্য কি আছে?

আপনার সোশ্যাল মিডিয়া টিমে একাধিক লোক থাকলেও সামঞ্জস্যতা আপনার কনটেন্টকে অন-ব্র্যান্ড রাখতে সহায়তা করবে।

আপনার অনুগামীদের জিজ্ঞাসা করুন

ভোক্তারাও সোশাল মিডিয়ায় অনুপ্রেরণা দিতে পারেন।

আপনার টার্গেট কাস্টমারা অনলাইন কি কথা বলছেন? আপনি তাদের চাওয়া এবং চাহিদা সম্পর্কে কি শিখতে পারেন?

বর্তমানে আপনার যদি সোশ্যাল চ্যানেল থাকে তবে আপনি আপনার অনুগামীদের জিজ্ঞাসা করতে পারেন যে তারা আপনার কাছ থেকে কী চায়৷ আপনি তাদের অনুসরণ করুন এবং তারা যা চায় তা সরবরাহ করুন।

 

ধাপ # ৭

সোশ্যাল মিডিয়া ক্যালেন্ডার তৈরি করুন

 

দুর্দান্ত কনটেন্ট শেয়ার করা অবশ্যই অপরিহার্য, তবে সর্বাধিক ফলাফল পেতে আপনি কখন কনটেন্ট শেয়ার করবেন তার জন্য একটি পরিকল্পনা থাকা সমান গুরুত্বপূর্ণ।

 

আপনার সোশ্যাল মিডিয়া কনটেন্ট ক্যালেন্ডারে অডিয়েন্সদের সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করার সময় ব্যয় করার জন্যও হিসাব রাখতে হবে (যদিও আপনাকে কিছু স্বতঃস্ফূর্ত এনগেজমেন্টের জন্যও অনুমতি দিতে হবে)।

 

আপনার পোস্টিং সময়সূচী সেট করুন

আপনার সোশ্যাল মিডিয়া কনটেন্ট ক্যালেন্ডারে আপনি প্রতিটি চ্যানেলে কোন ধরনের কনটেন্ট প্রকাশ করবেন সেই তারিখ এবং সময় তালিকাভুক্ত করুন। এটি আপনার সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়া কার্যক্রমের পরিকল্পনা করার জন্য নিখুঁত জায়গা—ছবি, লিঙ্ক শেয়ারিং, এবং ব্যবহারকারীর তৈরি কনটেন্টের রি-শেয়ার থেকে ব্লগ পোস্ট এবং ভিডিও পর্যন্ত। এতে আপনার প্রতিদিনের পোস্টিং এবং সোশ্যাল মিডিয়া ক্যাম্পেইনের কনটেন্ট উভয়ই অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

আপনার ক্যালেন্ডারটি নিশ্চিত করে যে আপনার পোস্টগুলি ধারাবাহিকভাবে সেরা সময়ে প্রকাশিত হয়েছে।

 

সঠিক কনটেন্ট মিক্স নির্ধারণ করুন

নিশ্চিত করুন যে আপনার কনটেন্ট স্ট্রাটেজি এবং ক্যালেন্ডার প্রতিটি সোশ্যাল প্রোফাইলে আপনার নির্ধারিত মিশন স্টেটমেন্ট প্রতিফলিত করে যাতে আপনি যা পোস্ট করেন তা আপনার ব্যবসায়িক লক্ষ্যগুলিকে সমর্থন করার জন্য কাজ করে।

আপনি সিদ্ধান্ত নিতে পারেন যে:

কনটেন্ট মিক্স

  • ২৫% কনটেন্ট অন্যান্য উৎস থেকে কিউরেট করা হবে।
  • ২০% কনটেন্ট লিড-জেনারেশন লক্ষ্য সমর্থন করবে (নিউজলেটার সাইন-আপ, ই-বুক ডাউনলোড, ইত্যাদি)
  • ৫% কনটেন্ট আপনার প্রতিষ্ঠানের সংস্কৃতি সম্পর্কে হবে
  • ৫০% কনটেন্ট আপনার ওয়েবসাইটে ট্রাফিক আনতে হবে

সঠিক কনটেন্ট মিক্স বজায় রাখতে, আপনার কনটেন্ট ক্যালেন্ডার বিভিন্ন ধরনের পোস্ট রাখা নিশ্চিত করবে।

৮০ – ২০ নিয়ম

আপনি যদি একেবারে শুরু থেকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং শুরু করে থাকেন এবং কোন ধরনের কনটেন্ট পোস্ট করবেন তা নিশ্চিত না হলে, ৮০-২০ নিয়ম চেষ্টা করুন:

২০% সরাসরি আপনার ব্র্যান্ড প্রচার করতে পারে।

আপনার ৮০% পোস্টগুলি আপনার অডিয়েন্সদেরকে জানানো, শিক্ষিত করা বা বিনোদন দেওয়া উচিত।

 

রুল অব থার্ডস

আপনি সোশ্যাল মিডিয়া কনটেন্ট মার্কেটিংয়ের ‘রুল অব থার্ডস’ নিয়মটিও চেষ্টা করতে পারেন:

  • আপনার কনটেন্টের এক-তৃতীয়াংশ আপনার ব্যবসার প্রচার করে, অডিয়েন্সদের কনভার্সন করে এবং মুনাফা তৈরি করে।
  • আপনার কন্টেন্টের এক-তৃতীয়াংশ আপনার ইন্ডাস্ট্রি বা সমমনা ব্যবসার থট লিডারদের কাছ থেকে ধারনা এবং গল্প শেয়ার করে।
  • আপনার কনটেন্টের এক-তৃতীয়াংশ হল আপনার অডিয়েন্সদের সাথে পার্সোনাল ইন্টারঅ্যাকশন।

 

খুব বেশি বা খুব কম পোস্ট করবেন না

আপনি যদি একেবারে শুরু থেকে একটি সোশ্যাল মিডিয়া স্ট্রাটেজি শুরু করে থাকেন, তাহলে আপনি হয়তো এখনও পর্যন্ত সর্বাধিক এনগেজমেন্টের জন্য প্রতিটি নেটওয়ার্কে কত ঘন ঘন পোস্ট করবেন তা বুঝতে পারেননি।

খুব ঘন ঘন পোস্ট করুন এবং আপনি আপনার অডিয়েন্সদের বিরক্ত করার ঝুঁকি নিন। কিন্তু, আপনি যদি খুব কম পোস্ট করেন, তাহলে আপনাকে ফলো করার যোগ্য নয় বলে মনে হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

এই পোস্টিং ফ্রিকোয়েন্সি সুপারিশ দিয়ে শুরু করুন:

ইনস্টাগ্রাম (ফিড) ফেসবুক দিনে টুইটার দিনে দিনে ১-৫ বার
প্রতি সপ্তাহে ৩-৭ বার ১-২ বার ১-৫ বার লিংকডইন

প্রো টিপ-

একবার আপনার সোশ্যাল মিডিয়া কনটেন্ট ক্যালেন্ডারের পরিকল্পনা হয়ে গেলে, সারা দিন ধরে একটার পরে একটা পোস্ট না করে আগাম ম্যাসেজ প্রস্তুত করতে শিডিউলিং টুল ব্যবহার করুন।

 

ধাপ # ৮

আকর্ষণীয় কনটেন্ট তৈরি করুন

অ্যাকাউন্ট সেট আপ করার সময় প্রতিটি নেটওয়ার্কের জন্য নির্দিষ্ট গোলে ফোকাস রাখতে যে একটি এক-বাক্যের ঘোষণা লিখেছিলেন সেই মিশন স্টেটমেন্টগুলি মনে রাখবেন? ঠিক আছে, একটু গভীরে যাওয়ার সময় এসেছে, প্রতিটি নেটওয়ার্কে আপনার মিশন পূরণ করতে আপনি যে ধরনের কনটেন্ট পোস্ট করবেন তার কিছু উদাহরণ প্রদান করুন।

 

এখানে (আইডিয়া) ধারণা করা হয়:

আপনার কনটেন্ট বিষয়বস্তু প্রতিটি নেটওয়ার্কের উদ্দেশ্যের সাথে ধারাবাহিক রাখুন
অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের দেখান (যদি প্রযোজ্য হয়) তারা প্রতিটি নেটওয়ার্কে কী ধরনের কনটেন্ট দেখতে চায়।

এই শেষ পয়েন্টটি বিশেষ করে আপনাকে কোনো উত্তেজনা এড়াতে সাহায্য করবে যখন আপনার সহকর্মীরা জানতে চায় কেন আপনি এখনও টিকটকে তাদের কেস স্টাডি/শ্বেতপত্র/ব্লগ পোস্ট পোস্ট করেননি।

আদর্শভাবে, আপনি বিভিন্ন প্রকারের কনটেন্ট তৈরি করবেন যা নেটওয়ার্কের জন্য উপযুক্ত এবং সেই নেটওয়ার্কের জন্য আপনি যে উদ্দেশ্য নির্ধারণ করেছেন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি সেই চ্যানেলটিকে প্রাথমিকভাবে কাস্টমার সার্ভিসের জন্য ঠিক করেন তবে আপনি টুইটারে ব্র্যান্ড অ্যাওয়ারনেস ভিডিও পোস্ট করার সময় নষ্ট করতে চান না। এবং আপনি টিকটকে সুপার পলিশড কর্পোরেট ভিডিও বিজ্ঞাপন পোস্ট করতে চাইবেন না, কারণ ব্যবহারকারীরা সেই প্ল্যাটফর্মে সংক্ষিপ্ত, আনপলিশ করা ভিডিওগুলি দেখার আশা করেন।

কোন ধরনের কনটেন্ট কোন ধরনের নেটওয়ার্কে সবচেয়ে ভালো কাজ করে তা নির্ধারণ করতে সময়ের সাথে কিছু পরীক্ষা নিতে হতে পারে, তাই এই বিভাগটি ঘন ঘন আপডেট করার জন্য প্রস্তুত করুন।

 

ধাপ # ৯

পারফর্মেন্স ট্র্যাক করুন এবং সেই অনুযায়ী আপনার কৌশল সামঞ্জস্য করুন

আপনার সোশ্যাল মিডিয়া স্ট্রাটেজি আপনার ব্যবসার জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট, এবং আপনি অনুমান করতে পারবেন না যে আপনি এটি প্রথম চেষ্টাতেই ঠিক পেয়ে যাবেন। আপনি যখন আপনার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন শুরু করার পরে, আপনার ফলাফলগুলি ট্র্যাক করতে শুরু করবেন, তখন আপনি দেখতে পাবেন যে কিছু কৌশল আপনার প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ করেছে না, যখন অন্যরা প্রত্যাশা অনুযায়ী আরও ভাল কাজ করছে।

পারফর্মেন্স মেট্রিক্স তাকান

প্রতিটি সোশ্যাল নেটওয়ার্কের এনালিটিক্স ছাড়াও, আপনি সোশ্যাল ভিজিটরদের ট্র্যাক করার জন্য UTM প্যারামিটার ব্যবহার করতে পারেন, এতে আপনি দেখতে পাবেন যে কোন সোশ্যাল পোস্টগুলি আপনার ওয়েবসাইটে সবচেয়ে বেশি ট্রাফিক পাঠিয়েছে।

 

পুনরায় মূল্যায়ন করুন, পরীক্ষা করুন এবং আবার করুন

একবার এই ডেটা আসতে শুরু করলে, আপনার কৌশলটি নিয়মিতভাবে পুনরায় মূল্যায়ন করতে এটি ব্যবহার করুন। আপনি বিভিন্ন পোস্ট, সোশ্যাল মার্কেটিং ক্যাম্পেইন, এবং একে অপরের বিরুদ্ধে কৌশল পরীক্ষা করতে এই তথ্য ব্যবহার করতে পারেন। কনস্ট্যান্ট টেস্টিং আপনাকে বুঝতে দেয় কোনটি কাজ করে এবং কোনটি নয়, যাতে আপনি রিয়েল টাইমে আপনার কৌশলটি পরিমার্জন করতে পারেন।

আপনি সপ্তাহে অন্তত একবার আপনার সমস্ত চ্যানেলের পারফর্মেন্স পরীক্ষা করুন এবং সোশ্যাল মিডিয়া রিপোর্টিংয়ের মূল বিষয়গুলি জানতে জানবেন, যাতে আপনি সময়ের সাথে সাথে আপনার উন্নতি ট্র্যাক করতে পারেন।

আপনার কৌশল কতটা ভাল কাজ করছে তা খুঁজে বের করার জন্য সমীক্ষা করাও একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে। আপনার ফলোয়ারদের, ইমেইল তালিকা এবং ওয়েবসাইট ভিজিটরদের জিজ্ঞাসা করুন আপনি তাদের চাহিদা এবং প্রত্যাশা পূরণ করছেন কিনা এবং তারা আরও কী দেখতে চান। তারপরে তারা আপনাকে যা বলে তা নিশ্চিত করুন।

You May Also Like

About the Author: Shams Biswas

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.