যেভাবে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স নিদ্ধারণ করবেন

আপনার টার্গেট অডিয়েন্স কে?

আপনার টার্গেট অডিয়েন্স নির্ধারণ করতে নীচের টেমপ্লেটটি ব্যবহার করুন।

টার্গেট অডিয়েন্সে নাম: ____________________________________________________

টার্গেট অডিয়েন্সর প্রয়োজন: _______________________________________________

জনসংখ্যা

বয়স:__________________ লিঙ্গ:___________ পারিবারিক আয় ___________________

শিক্ষা বা পেশা___________________ লোকেশান ______________________

আগ্রহ                                                        আচরণ

   

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আপনার টার্গেট অডিয়েন্স সনাক্ত করুন

 

আপনি যে অডিয়েন্সদের কাছে মার্কেটিং করতে যাচ্ছেন, তাদের মধ্যে কে বা কারা আছে তা আপনাকে আগে জানতে হবে। সাম্প্রতিক প্রকাশিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-ভিত্তিক জনমত জরিপ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান পিউ রিসার্চ সেন্টারের তথ্যানুসারে, তুলনামূলক ভাবে মিলেনিয়ালদের (১৯৮২ থেকে ২০০৪ সাল সময়ের মধ্যে জন্ম নেওয়া প্রজন্ম) লাইফস্টাইল বেবি বুমারের (দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী ১৯৪৬ থেকে ১৯৬৪ সালের মধ্যে জন্ম নেওয়া প্রজন্ম) তুলনায় ভিন্ন এবং দৈনন্দিন জীবনে তারা পুরানো প্রজন্ম যেমন জেনারেশন এক্সদের (১৯৬৫ থেকে ১৯৮৪ সালের মধ্যে জন্ম নেওয়া প্রজন্ম) থেকে ভিন্নভাবে প্রযুক্তি ব্যবহার করে। [২]

 

ভিন্ন ভিন্ন অডিয়েন্সের প্রত্যাশা ও চাহিদার সাথে ম্যাচ করে, আপনি কীভাবে প্রতিটি অডিয়েন্সের কাছে বিশেষভাবে মার্কেটিং করতে পারেন সে সম্পর্কে চিন্তা করুন। টার্গেট অডিয়েন্স বিজনেসের অফারেন প্রতি আগ্রহী হবে এমন লোকেদের উপর মার্কেটিং এফোর্টস ফোকাস করতে সাহায্য করে।

 

আসুন দেখে নিয়, কে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স, তাদের ধরন এবং আপনি ব্যবহার করতে পারেন এমন বিনামূল্যের টুলগুলি কীভাবে খুঁজে পাবেন।

 

টার্গেট অডিয়েন্সের ধরণ

একটি ব্যবসা বা অলাভজনদের জন্য একাধিক টার্গেট অডিয়েন্স থাকাতে পারে।

 

প্রাইমারি টার্গেট অডিয়েন্স

যেহেতু আপনার প্রাইমারি টার্গেট অডিয়েন্সরা আপনার বেশি মনোযোগ আকর্ষণ করবে, সেহেতু আপনি আশা করবেন যে তারা আপনার কাস্টমারদের সবচেয়ে মূল্যবান গ্রুপে পরিণত হবে।

 

সেকেন্ডারি টার্গেট অডিয়েন্স

আপনার সেকেন্ডারি টার্গেট অডিয়েন্স হল সাধারণ বৈশিষ্ট্যের মানুষদের অন্যান্য গ্রুপ যারা আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের প্রতি আগ্রহী হতে পারে, কিন্তু তাদের আপনার সবচেয়ে মূল্যবান গ্রাহক হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই কম। তারা আপনাকে আপনার মার্কেটিং এফোর্টস গঠনে সাহায্য করতে পারে: বিশেষ করে যদি আপনি একাধিক প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বিক্রি করেন। আপনি যদি মনে করেন যে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিসগুলি স্বতন্ত্রভাবে বিভিন্ন গ্রুপের মানুষের কাছে আবেদন করতে পারে তা পরীক্ষা করার জন্যও তারা উপযোগী।

 

এই সহজ টিপস দিয়ে শুরু করুন

আপনার টার্গেট অডিয়েন্সদের চিহ্নিত করতে, আপনাকে এই তিনটি টিপস অনুসরণ করতে হবে:

 

১. আপনার বিদ্যমান সোশ্যাল মিডিয়ার অডিয়েন্স পরীক্ষা করুন

সোশ্যাল মিডিয়াতে যারা আপনার ব্র্যান্ডকে অনুসরণ করে এবং ইন্টারঅ্যাক্ট করে তাদের দিকে দ্রুত নজর দিন। আপনার টার্গেট অডিয়েন্সদের ন্যারো করতে নিম্নলিখিত প্রশ্নগুলি ব্যবহার করুন।

  • বয়স: আপনার অডিয়েন্সদের বয়স কত? তারা জীবনের কোন পর্যায়ে আছে? আপনার অডিয়েন্স কি কলেজে পড়ে? নবদম্পতি? কিংবা অবসর নিয়েছেন?
  • অবস্থান: আপনার অডিয়েন্সরা কোথায় থাকেন?
  • আগ্রহ: আপনার বিদ্যমান সোশ্যাল মিডিয়ার অডিয়েন্সদের অন্য কোন আগ্রহ আছে? কিভাবে তাদের আগ্রহ আপনার প্রোডাক্টের সাথে সম্পর্কিত?

 

২. আপনার শ্রোতারা আপনার সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলগুলি থেকে কী চায় তা বুঝুন

আপনার অডিয়েন্স কি কাস্টমার সার্ভিসের জন্য আপনার সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন? তারা কি আপনার প্রোডাক্ট সম্পর্কে আরও ভালোভাবে জানতে এটি ব্যবহার করে? এমনকি, আপনি তাদের পছন্দগুলি আরও ভালভাবে বুঝতে সরাসরি তাদের মতামত নিয়ে থাকেন। একবার, আপনি পরীক্ষা করে দেখুন, আপনার অডিয়েন্সরা আপনার পোস্টগুলিতে কীভাবে ইন্টারঅ্যাক্ট করে। আপনি সোশ্যাল মিডিয়া কে এমন ভাবে ফিট বানাবেন যাতে সেটার সাথে ম্যাচ হয়।

 

৩. ট্রেন্ড মনিটর

আপনি কি লক্ষ্য করেছেন যে, আপনার অডিয়েন্স নির্দিষ্ট জিনিস সম্পর্কে কথা বললে, সেগুলি আপনার প্রোডাক্টের সাথে সম্পর্কিত কিনা? তারা কথোপকথনের সময় কি নির্দিষ্ট হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে? আপনার অডিয়েন্সদের পছন্দের জিনিসগুলির উপর নজর রাখা উচিত।

ট্রেন্ড মনিটরিংয়ের জন্য কিওয়ার্ড এবং হ্যাশট্যাগ ট্র্যাকিং সহজ হবে। আপনার গ্রাহকরা একই ফ্রেইজ ব্যবহার করলে, আপনার ব্র্যান্ড তাদের বিগ পিকচারে কোথায় ফিট হয়, তা দেখতে সেই ফ্রেইজগুলি নিয়মিত সার্চ করুন৷ একইভাবে টুইটার এবং ইনস্টাগ্রামে প্রাসঙ্গিক হ্যাশট্যাগগুলি আপনার সার্চ করা দরকার, কারণ মানুষ তার আশেপাশে প্রায়শ আলোচনার আয়োজন করে। এইভাবে, লোকজন কী পোস্ট করছে এবং তারা কী বিষয়ে আগ্রহী তা আপনি ট্র্যাক রাখতে পারেন।

 

আপনি যখন আপনার টার্গেট অডিয়েন্স পেয়ে যাবেন, তখন কি করবেন

আপনার টার্গেট অডিয়েন্সদের চিহ্নিত করার পরে, তিনটি উপায়ে আপনি তা কাজে লাগাতে পারেন:

১. আপনি আপনার মার্কেটিং স্ট্রাটেজিটি এমন লোকদের কাছে পৌঁছানোর জন্য তৈরি করতে পারেন – যাদের জন্য তাদের পছন্দের পদক্ষেপ নিতে চান।

২. আপনি বয়স, লিঙ্গ, অবস্থান বা অন্যান্য জনসংখ্যা সংক্রান্ত তথ্যের উপর ভিত্তি করে বিশেষভাবে আপনার টার্গেট অডিয়েন্সের জন্য ক্যাম্পেইন তৈরি করতে পারেন।

৩. আপনার কাছে থাকা তথ্য ব্যবহার করে টার্গেট অডিয়েন্সের জন্য সম্মানজনক ও পরিমার্জিত বার্তা তৈরি করতে পারেন – যা আপনার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের সাথে মিলে।

 

আপনার টার্গেট অডিয়েন্স সনাক্ত করার কাজে সহযোগিতার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মগুলো বিনামূল্যের টুল ব্যবহার করতে দেয়। চলুন জেনে নিয়ে ফেসবুক, টাইটার, লিংকডইন এবং গুগলের টুলগুলো

 

আপনার টার্গেট অডিয়েন্স সনাক্ত করতে গবেষণা সরঞ্জাম রিসার্চ টুলস

 

ফেইসবুক অডিয়েন্স ইনসাইটস

এই মুহূর্তে বলা যায়, টার্গেট অডিয়েন্স শনাক্ত করতে ফেইসবুক অডিয়েন্স ইনসাইটস (Facebook Audience Insights) হলো সবচেয়ে শক্তিশালী টুল। কারণ ব্যবহারকারীর সংখ্যায় শীর্ষে থাকা ফেসবুক সোশ্যাল মিডিয়ায় থাকা কাস্টমারদের সাথে যোগাযোগের  একক বৃহত্তম প্লাটফর্ম। শুধু তাই নয়, সোশ্যাল প্লাটফর্ম হিসাবে ব্যবহারে শীর্ষে থাকা হোয়াটসঅ্যাপ, ম্যাসেঞ্জার এবং ইনস্টাগ্রামের মালিক ফেসবুকের মূল প্রতিষ্ঠান মেটা প্ল্যাটফর্ম। তাই অডিয়েন্স ইনসাইটে সেই প্লাটফর্মগুলির ডেটাও অন্তর্ভুক্ত থাকে।

আপনি ফেইসবুক অডিয়েন্স ইনসাইটস ব্যবহার করে সনাক্ত করতে পারবেন কাস্টমারের বয়স, লিঙ্গ, লাইফস্টাইল, শিক্ষা, রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস, জব রোল, পরিবারের আকার, অবস্থান, পেজ লাইকসহ গ্রাহকদের পূর্বে কেনাকাটার কার্যকলাপ।

অডিয়েন্স ইনসাইট ব্যবহার করে, আপনি ঠিকমতো জানতে পারেন কে আপনার পেজের সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করছে। আপনি যখন বিভিন্ন মার্কেটিং স্ট্রাটেজি পরীক্ষা করেন তখন এটি আপনাকে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া, যেমন পেজ ভিউ, লিঙ্ক ক্লিক, কেনাকাটা এবং আরও অনেক কিছু দিয়ে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স ন্যারো করতে সহায়তা করে।

 

গুগল অ্যানালিটিকস

আপনার কাস্টমাররা আপনার ওয়েবসাইটে কী করছেন তা জানাতে গুগলের প্ল্যাটফর্ম গুগল অ্যানালিটিকস (Google Analytics) ব্যবহার করুন। গুগল অ্যানালিটিকস বিজনেস অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে আপনি যা করতে পারেন:

  • আপনার সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট থেকে আসা ট্র্যাফিকের সাথে তুলনা।
  • কোন সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট থেকে সর্বোচ্চ ফলাফল এবং কনভার্শনস আসছে তা বের করা।
  • আপনার অডিয়েন্স কোন পেজ থেকে আপনার কোন পেজে আসছেন তা শনাক্ত করা।

 

মানুষজন কীভাবে আপনার ব্যবসার সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করছে তা জানার জন্য গুগল অ্যানালিটিকস একটি দুর্দান্ত টুল। আপনি গুগল অ্যানালিটিকস ব্যবহার করতে পারেন কনভার্শনস রেট, বা আপনার পেজে যে এ্যাকশান (‘বাটন চাপুন’, ‘ক্লিক করুন’, ‘ডাউনলোড করুন’, ‘নিউজলেটারের জন্য সাবস্ক্রাইব’ বা ‘আইটেম ক্রয়’ ইত্যাদির) নেওয়ার জন্য ইউজারদের জন্য অনুরোধ বা আকৃষ্ট করা হয়েছে তার শতকরা হার বের করা জন্য।

 

টুইটার বিজনেস অ্যানালিটিকস

 

সবচেয়ে দ্রুত গতিশীল সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলির মধ্যে একটি হলো টুইটার, এবং প্রায়ই অন্যান্য প্ল্যাটফর্মগুলিতে কী ট্রেন্ড আসছে তার একটা পূর্বাভাস পাওয়া যায়৷ টুইটার বিজনেস অ্যানালিটিকস (Twitter Business Analytics) থেকে জানা যাবে:

  • আপনার ফলোয়ারদের আগ্রহ
  • তারা যে ডিভাইসগুলি ব্যবহার করে
  • তাদের অনলাইন পোস্টিং আচরণ
  • তারা কী কিওয়ার্ড সার্চ করে

 

টুইটার বিজনেস অ্যানালিটিক্স থেকে ট্রেন্ড ফলো এবং কিওয়ার্ডগুলি মনিটর করে আপনি আপনার অডিয়েন্সদের ন্যারো করতে সহযোগিতা নিতে পারেন।

 

লিংকডইন অডিয়েন্স ইনসাইটস

 

লিংকডইন হল বিজনেস-টু-বিজনেস (B2B) মার্কেটিংয়ের প্রাইমারি প্ল্যাটফর্ম। ২০১৯ সালে বি-টু-বি লেনদেনের অন্তত ৫০ শতাংশ এসেছিল এখান থেকে। লিংকডইন অডিয়েন্স ইনসাইট (LinkedIn Audience Insights) আপনার ব্যবসার টার্গেট অডিয়েন্স এবং রিলেশন ট্র্যাক করার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। লিংকডইন অডিয়েন্স ইনসাইটস আপনাকে বলতে পারে:

 

  • আপনার বি-টু-বি কন্টাক্টস কার সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করে
  • তাদের পূর্বের আচরণ
  • তাদের ভৌগলিক তথ্য

 

লিংকডইন একটি অনন্য মাধ্যম কারণ এটা জানাবে আপনার পোস্টে কোন ইন্ডাস্ট্রির, কোন জব টাইটেলের লোকজন ইন্টারঅ্যাক্ট করছে। এটি একটি চমৎকার নেটওয়ার্ক, যেখান থেকে চাকরির জন্য লোক নিয়োগ করা। টিমকে বড় করা যায়। আপনি ইন্ডাস্ট্রি, জব টাইটেল, বা স্কিল দিয়ে লোকেদের অনুসন্ধান করতে পারেন এবং তাদের একটি তালিকাও পেয়ে যাবেন, যাদের সাথে আপনার কানেকশন থাকতে পারে।

লিংকডইন অডিয়েন্স ইনসাইটস আপনাকে আপনার টার্গেট অডিয়েন্সদেরকে খুব সুনির্দিষ্ট টার্গেটিং টুলের সাহায্যে কাস্টমাইজ করার আপশান দিয়ে ন্যারো করতে সাহায্য করে। এই টুলগুলি বিশেষভাবে বিজ্ঞাপনের জন্য, আপনার কোম্পানিতে ওপেন পজিশন সম্পর্কে লোকেদের জানানোর জন্য বা যেকোনো বি-টু-বি প্রোডাক্ট অফার করার জন্য।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.