বার্ষিক আয়ে ১০ শীর্ষ ফুটবলার

বার্ষিক আয়ে ১০ শীর্ষ ফুটবলার

 

ফোর্বস ম্যাগাজিনের প্রকাশিত হয়েছে ২০২০ মৌসুমের সর্বোচ্চ আয় করা ফুটবলারের তালিকা। শীর্ষস্থানে রয়েছে আর্জেন্টাইন মহাতারকা লিওনেল মেসি। পরের নামটি বিশ্ব ফুটবলের আরেক মহাতারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর। তৃতীয় এবং চতুর্থ অবস্থানে আছেন পিএসজির দুই তারকা ফুটবলার ব্রাজিলের নেইমার এবং ফরাসি এমবাপে। ৫ আর ৬ নম্বর জায়গায় আছেন দুই ইপিএল মাতানো ফুটবলার। লিভারপুলের মিশরীয় তারকা মোহাম্মদ সালাহ এবং ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ফরাসী ফুটবলার পল পগবা। তালিকাটিতে এরপর আছেন বার্সেলোনার ফরাসী তারকা আঁতোয়া গ্রিজম্যান এবং রিয়াল মাদ্রিদের ফরোয়ার্ড ওয়েলস তারকা রেথ বেল। নবম স্থানে আছেন পোলিশ স্ট্রাইকার বায়ার্ন মিউনিখের ফরোয়ার্ড রবার্ট লেওয়ানডোস্কি। এবং তালিকায় দশম স্থানে আছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের স্প্যানিশ গোলরক্ষক ডেভিড ডি হেইয়া। বিস্তারিত জানাচ্ছেন শামস্ বিশ্বাস।

 

ফোর্বস

মাকির্ন যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি থেকে বছরে ৮ বার প্রকাশিত হয় ব্যবসাভিত্তিক জনপ্রিয় ম্যাগাজিন ফোর্বস। ফোর্বস মিডিয়ার মালিকানাধীন এই ম্যাগাজিনটি ১৯১৭ সাল থেকে প্রকাশিত হয়ে আসছে। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় এই বিজনেস ম্যাগাজিনটি মার্কিনযুক্তরাষ্ট্রে সর্বাধিক (নয় লাখের বেশি) প্রচারিত ম্যাগাজিন। এশিয়া, ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্যে এবং লাটিন আমেরিকায়ও এর আন্তর্জাতিক সংস্করণ বের হয়ে থাকে। এ ম্যাগাজিনটিতে সাধারণত প্রাধান্য পেয়ে থাকে অর্থনীতি, শিল্প-বাণিজ্য, রাজনীতির বিভিন্ন বিষয়। বিভিন্ন রকম তালিকা প্রকাশের জন্য ফোর্বস বিখ্যাত। যেমন: সবচেয়ে ধনী আমেরিকানের তালিকা, বিলওনিয়ারের তালিকা ইত্যাদি। ফোর্বস ম্যাগাজিনের মূলনীতি হচ্ছে দ্য ক্যাপিটালিস্ট টুল।

 

০১. লিওনেল মেসি

ফুটবলীয় মানদণ্ডে গেল মৌসুম দুঃস্বপ্নের মতো কাটলেও আর্জেন্টিনার ফুটবল ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতা লিওনেল মেসির উপার্জনে তার কোনো প্রভাব পড়েনি। মেসির সেরা মৌসুম নিয়ে বিতর্ক থাকলেও পরিসংখ্যানগত দিক দিয়ে তাঁর সেরা মৌসুম ছিল ২০১১-১২। সেই মৌসুমে তিনি লা লিগা এবং ইউরোপীয় ফুটবলের ইতিহাসে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ সংখ্যক গোল করার কৃতিত্ব অর্জন করেন এবং বার্সেলোনার ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। তাঁর প্রতিভার আরেকটি ঝলক দেখা যায় ২০১৪-১৫ মৌসুেম, যখন তিনি লা লিগা ও উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতার কৃতিত্ব অর্জন করেন এবং বার্সেলোনাকে ঐতিহাসিক দ্বিতীয় ট্রেবল জয়ে সাহায্য করেন। ১৬ বছরে কাতালান ক্লাব এফসি বার্সেলোনাকে ৩৪টি ট্রফি এনে দিয়েছেন লিওনেল মেসি৷ বিদায়ের ঘোষণা দিয়েও শেষ পর্যন্ত আরেক মৌসুম স্প্যানিশ ক্লাবটিতেই থেকে যাচ্ছেন৷ এজন্য বেতন পাচ্ছেন নয় কোটি ২০ লাখ মার্কিন ডলার৷ সাথে বিজ্ঞাপনসহ বিভিন্ন চুক্তি থেকে অ্যাকাউন্টে যোগ হচ্ছে আরো তিন কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার৷ সব মিলিয়ে সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ফুটবলারের এ বছরের মোট আয় ১২ কোটি ৬০ লাখ মার্কিন ডলার বা প্রায় এক হাজার ৬৯৮ কোটি টাকা! এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের মাত্র ষষ্ঠ ক্রীড়াবিদ হিসেবে মেসির মোট আয় ১০০ কোটি ডলারের ঘর ছুঁয়েছে। এবার বিলিয়নিয়ার ক্লাবে নাম লেখালেন মেসি। আগামী বছরও ফোর্বসের তালিকায় মেসির শীর্ষে থাকা একরকম নিশ্চিত। কারণ দলবদলের ঘোষণা দিয়েও শেষ পর্যন্ত বার্সেলোনায় থেকে যাওয়ায় আনুগত্য বোনাস হিসেবে অতিরিক্ত ৮৩ মিলিয়ন ডলার পাবেন মেসি।

 

০২. ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো

ক্যারিয়ার-আয়ে লিওনেল মেসি মেসির ওপরে থাকলেও গত এক বছরে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে নয় মিলিয়ন ডলার কম আয় করেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। সামাজিক মাধ্যমে ৪৫ কোটি অনুসারী নিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় অ্যাথলেটের এখন পর্তুগিজ লিজেন্ট। তিনি প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ৫টি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয় করেন। নাইকি, ক্লিয়ার শ্যাম্পুর মতো কোম্পানিগুলো থেকে এ বছর তার পকেটে ঢুকছে চার কোটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলার৷ বেতন সাত কোটি। সব মিলিয়ে বার্ষিক আয় দাঁড়াচ্ছে ১১ কোটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলার বা ৯৯৩ কোটি টাকার বেশি৷ গত জুনে প্রথম ফুটবলার হিসেবে ১০০ কোটি মার্কিন ডলার আয়ের মাইলফল ছুঁয়েছেন রোনাল্ডো।

 

০৩. নেইমার জুনিয়র

নেইমার জুনিয়র | Neymar
২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপে ব্রাজিল জাতীয় ফুটবল দলের হয়ে খেলছেন নেইমার।
ছবি: উইকিপিডিয়া

ব্রাজিলিয়ান তারকার নেইমার জুনিয়রের বার্ষিক বেতন সাত কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার। এর সাথে রয়েছে বিজ্ঞাপনসহ অন্যান্য খাত থেকে আসা আরো এক কোটি আশি লাখ মার্কিন ডলার। সব মিলিয়ে নয় কোটি ষাট লাখ মার্কিন ডলার বার্ষিক আয় তার। ফ্রান্সে রাখতে ট্রান্সফার মানিসহ ব্রাজিলের এই তারকার পেছনে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন (পিএসজি)র ব্যয় ৬০ কোটি ডলার।

 

০৪. কিলিয়ান এমবাপ্পে

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার হাতে এমবাপে
২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার হাতে কিলিয়ান এমবাপে।
ছবি: উইকিপিডিয়া

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপে তিনি ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপে সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতার রেকর্ড করেন এবং পেলের পর দ্বিতীয় তরুণ খেলোয়াড় হিসেবে বিশ্বকাপের ফাইনালে গোল করেন। ফ্রান্স দ্বিতীয়বারের মত ঘরে তুলে বিশ্বকাপ এবং তিনি যৌথভাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা হন এবং সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার অর্জন করেন। ফরাসী লিগে পরপর দুই বছর শীর্ষ গোলদাতা হয়েছেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। তার ক্লাব প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি)ও হয়েছে চ্যাম্পিয়ন৷ সব মিলিয়ে সেরা সময়টাই পার করছেন এই ফরাসি তরুণ। আয়েও লেগেছে তার হাওয়া৷ চার কোটি ২০ লাখ মার্কিন ডলার আয় নিয়ে তিনি আছেন চার নম্বরে। দুই কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার বেতন আর এক কোটি ৪০ লাখ ডলার আসে বিজ্ঞাপন থেকে।

 

০৫. মোহাম্মদ সালাহ

রোমা থেকে ২০১৭ সালে লিভারপুলে যোগ দেন মিশরী কিংবদন্তি মোহাম্মদ সালাহ। অ্যানফিল্ডে এই তিন বছরে জিতেছেন চারটি ট্রফি। লিগ ছাড়াও আছে চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা। ইংলিশ দলটির হয়েই দুর্দান্ত খেলে গ্লোবাল সুপারস্টারের ইমেজ পেয়েছেন তিনি। ২০২০-২১ মৌসুমে লিভারপুলের হয়ে সূচনাটি হয়েছিল হ্যাটট্রিকে। গেল মৌসুমে লিভারপুলের শিরোপা জয়ে বড় অবদান রেখেছেন। এর আগে দুবার লিগে সর্বোচ্চ গোলদাতাও হয়েছেন সালাহ। মোহাম্মদ সালাহ ভোডাফোনের সঙ্গে দীর্ঘমেয়াদী এক চুক্তিও করেছেন। বেতনে দুই কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলারের বাইরে তার বাড়তি আয় এক কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার। মোট আয় ৩ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

 

০৬. পল পগবা

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাথে ফরাসি মিডফিল্ডার পল পগবার চুক্তি পরবর্তী গ্রীষ্ম পর্যন্ত৷ বার্ষিক বেতন দুই কোটি ৮০ লাখ ডলার। সাথে রয়েছে এন্ডোসমেন্ট বাবদ আয়। সব মিলিয়ে তার আয় তিন কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার বছরে।

 

০৭. আঁতোয়া গ্রিজম্যান

বার্সেলোনায় গত বছর ফরাসী তারকা আঁতোয়া গ্রিজম্যানের সূচনাটা ছিল হতাশাজনক। মাঝে পিএসজির সঙ্গে বদলির খবরও শোনা যাচ্ছিল। তবে ব্যাংক ব্যালেন্সে মাঠের পারফর্ম্যান্সের প্রভাব পড়েনি। বার্ষিক আয় ৩ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার৷ এর মধ্যে দুই কোটি আশি লাখ পান বেতন বাবদ৷ বাকিটা বিজ্ঞাপন থেকে।

 

০৮. গ্যারেথ বেল

লা লিগার সবশেষ ১১টির মধ্যে মাত্র দুটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছেন গ্যারেথ বেল৷ ২০১৯-২০-এ একটি হতাশাজনক মৌসুম কাটিয়েছেন ওয়েলশ তারকা। রিয়াল বস জিনেদিন জিদানের আস্থাভাজন কখনই হতে পারেননি বেল। যে কারণে গত আসরের শেষ ১৪টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র দুটিতে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। বছরজুড়ে রিয়ালের রিজার্ভ বেঞ্চে বসে ২০২০-২১ মৌসুমের জন্য বেতন নিচ্ছেন দুই কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার৷ বিজ্ঞাপন, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি বাবদ পাচ্ছেন আরো ৬০ লাখ মার্কিন ডলার৷

 

০৯. রবার্ট লেভানডোভস্কি

দুর্দান্ত একটা সময় পার করছেন বায়ার্ন মিউনিখের পোলিশ স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানডোভস্কি। সম্প্রতিক জার্মানির বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন। করোনার কারণে আয়োজকরা চলতি বছর ‘বালোঁ দর’-এর আয়োজন বাতিল করেছে। পুরস্কারটির সবচেয়ে বড় দাবিদার ছিলেন লেভানডোভস্কি! পোলিশ স্ট্রাইকার ৫৫টি গোল করেছেন গেল মৌসুমে৷ বায়ার্নে তার বেতন দুই কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার৷ এনডোর্সমেন্ট মিলিয়ে মোট আয় দুই কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার।

 

১০. ডাভিড ডি হেয়া

শুধু গোল করেই যে টাকা কামানো যায় তা কিন্তু নয়। গোল আটকিয়েও মিলিয়নার হওয়া যায়। প্রমাণ ডেভিড ডি হেইয়া। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছ থেকে দুই কোটি ৪০ লাখ ডলার বেতন নিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে দামি গোলকিপার ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের এই স্প্যানিশ গোলরক্ষক। এখানেই শেষ নয়, এন্ডোসমেন্ট থেকে আয় ৩০ লাখ মার্কিন ডলার। সব মিলিয়ে তার বার্ষিক আয় দুই কোটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলার।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Close Menu