সোশ্যাল মিডিয়ার ক্যাটাগরি

সোশ্যাল মিডিয়ার ল্যান্ডস্কেপ দ্রুত এবং বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম নিয়ে গঠিত। এবং আমরা জানি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি মার্কেটারদের কাস্টমারদের সাথে সংযোগ স্থাপন এবং আপনার বার্তাগুলি শেয়ার করার জন্য দুর্দান্ত সুযোগ প্রদান করে। আপনার অডিয়েন্সদের খুঁজে পেতে, তাদের সাথে একটি বাস্তব সংযোগ তৈরি করতে, এবং লোকেরা ব্যবহার করে এমন প্রধান প্ল্যাটফর্মগুলি বুঝতে সহায়তা করে।

আশাকরি এই অধ্যায়ের শেষে, আপনার কাছে সোশ্যাল মিডিয়ার ল্যান্ডস্কেপের একটি ইমেজ তৈরি হবে এবং আপনি বিভিন্ন উপায়ে অনেকগুলি সোশ্যাল মিডিয়া সাইটকে শ্রেণীবদ্ধ করতে পারবেন।

কাস্টমার যে-খানে, মার্কেটাররাও সে-খনে থাকতে চায়। কিছু সোশ্যাল নেটওয়ার্কের বিশাল ইউজারবেস থাকায় ভালো রিচ পাওয়ার বিশাল সম্ভাবনা থাকে। তাই সাধারণত, মার্কেটাররা তাদের অডিয়েন্সদের সবচেয়ে বড় সোশ্যাল নেটওয়ার্কগুলিতে খুঁজে পায়।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘উই আর সোশাল’ আর কানাডাভিত্তিক ডিজিটাল সেবা প্রতিষ্ঠান ‘হুটস্যুইট’-এর (২০২১, জানুয়ারি ২৫) তথ্যানুযায়ী, বিশ্বব্যাপী ২.৭৪ বিলিয়ন ব্যবহারকারীর নিয়ে ফেসবুক এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় সোশ্যাল নেটওয়ার্ক। এর পরে রয়েছে ইউটিউব (২.২৯ বিলিয়ন)।

তিন এবং চারে থাকা হোয়াটসঅ্যাপ (২ বিলিয়ন) এবং ফেসবুক মেসেঞ্জার (১.৩ বিলিয়ন) উভয়ই মেটা প্ল্যাটফর্ম মালিকানাধীন বৃহত্তম মেসেজিং ফোকাসড প্ল্যাটফর্ম।

বিশ্বের পঞ্চম শীর্ষ সোশ্যাল নেটওয়ার্কটিও মেটা প্ল্যাটফর্ম পরিবারের অংশ, ১.২২ বিলিয়ন ব্যবহারকারী নিয়ে ইনস্টাগ্রাম আরেকটি বড় প্ল্যাটফর্ম। ছয় নম্বরে থাকা চীনা প্ল্যাটফর্ম উইচ্যাট (১.২১) ম্যাসেজিং প্ল্যাটফর্ম হিসাবে শুরু হয়েছিল, কিন্তু এখন অনেক কিছু অফার করে। টিকটক (৬৮৯ মিলিয়ন) খুব ফাস্ট-গ্রোইং শর্ট-ফর্ম ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম নেটওয়ার্ক যা ডুইয়িন নামে পরিচিত। ডুইয়িনের ব্যবহারকারী সংখ্যা ৬০০ মিলিয়ন। ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং প্লাটফর্ম

টেনসেন্ট কিউকিউ (৬১৭ মিলিয়ান) সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং প্লাটফর্ম টেনসেন্ট কিউজোন (৬০০ মিলিয়ান) এবং মাইক্রোব্লগিং ওয়েবসাইট সিনা ওয়েইবো (৫১১ মিলিয়ান) মূলত চীনে ব্যবহৃত হয়।

মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম টেলিগ্রাম এবং স্ন্যাপচ্যাটের ব্যবহারকারী সংখ্যা যথাক্রমে ৫০০ এবং ৪৯৮ মিলিয়ন। এরপরে রয়েছে চীনা ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম কুয়াইশো, যার ব্যবহারকারী সংখ্যা ৪৮১ মিলিয়ন। ছবি শেয়ারিং প্লাটফর্ম পিন্টারেস্ট ব্যবহারকারী সংখ্যা ৪৪২ মিলিয়ন। এর পরে কনভারসেশন প্ল্যাটফর্ম রেডডিট অনুসরণ করে ৪৩০ মিলিয়ন ব্যবহারকারী, তারপরে রয়েছে মাইক্রোব্লগিং প্লাটফর্ম টুইটার (৩৫৩ মিলিয়ন) সামাজিক প্রশ্নোত্তরের ওয়েবসাইট কোরা (৩০০ মিলিয়ন)।

পরবর্তী অধ্যায়ে, আমরা এই প্ল্যাটফর্মগুলির সম্পর্কে বিস্তৃতভাবে জানবো – তারা কীভাবে কাজ করে এবং মার্কেটাররা কীভাবে সেগুলি ব্যবহার করে।

এই নেটওয়ার্কের অডিয়েন্সদের আকার ছাড়াও, মার্কেটারদের জন্য এই প্ল্যাটফর্মগুলি ব্যবহার করে এমন লোকের জনসংখ্যার বিবেচনা করা অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ।

বিভিন্ন নেটওয়ার্কের ব্যবহারকারীদের জনসংখ্যা বোঝা মার্কেটারদের সোশ্যাল মিডিয়া বেছে নিতে সাহায্য করে – যেখানে তাদের বেশিরভাগ গ্রাহক সক্রিয়।

পিউ রিসার্চ সেন্টারের একটি গবেষণার ভিত্তিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেটওয়ার্কগুলির বয়স এবং লিঙ্গ বন্টন ম্যাপ দেখুনৱ।

 

আপনারা দেখতে পাচ্ছেন, বিভিন্ন পণ্য বিভিন্ন বয়সের জন্য কমবেশি আপিল করে।

ইউটিউব এবং ফেসবুক প্রায় যেকোনো বয়সের লোকেরা ব্যবহার করে। ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সের মধ্যে ৬০% লোক স্নাপচ্যাট ব্যবহার করে, সেখানে বয়স্কদের ব্যবহার কম। ইনস্টাগ্রামও কম বয়সীরা ব্যবহার করে, কিন্তু সেখানে দেখি যাচ্ছে যে ৩০ থেকে ৪৯ বছর বয়সের মধ্যে ৪০% লোকও প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহার করে।

টুইটার অল্প বয়স্ক গোষ্ঠীর দিকে আনেকটা বিপরীতসহ সামগ্রিকভাবে অনেক কম দর্শকদের কাছে পৌঁছেছে। পেশাদার অডিয়েন্সদের উপর ফোকাস লিংকডইন ৩০ থেকে ৪৯ বছর বয়সীদের মধ্যে জনপ্রিয়। পিন্টারেস্ট, ছোট হলেও, ৩০ বছরের কম বয়সী এবং ৪০ বছরের কম বয়সী দর্শকদের মধ্যে সমানভাবে পৌঁছায়।

যখন এটি লিঙ্গের ক্ষেত্রে আসে, ইউটিউব, লিঙ্কডইন এবং টুইটার পুরুষ এবং নারীদের মধ্যে একটি চমত্কার অনুরূপ এনগেজ আছে।

ফেইসবুক, স্ন্যাপচ্যাট এবং ইনস্টাগ্রাম সবগুলোই নারীদের সাথে কিছুটা বিপরীত। পিন্টারেস্টের রিচ নারীদের মধ্যে ৪১% এবং পুরুষদের মধ্যে মাত্র ১৬%।

 

এখন পর্যন্ত, আমরা বিভিন্ন নেটওয়ার্কের আকার এবং বয়স এবং লিঙ্গ বন্টন দেখেছি।

আমরা যখন বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মধ্যে পার্থক্য সম্পর্কে চিন্তা করি তখন আমরা বিবেচনা করতে চাই এমন আরেকটি বিষয় আছে। এবং এটি সেই ইনটেনসিটি বা তীব্রতা যার সাথে এর অডিয়েন্সরা তাদের ব্যবহার করে। ইউটিউব এবং ফেসবুক তাদের অডিয়েন্সদের কাছ থেকে সবচেয়ে তীব্র ব্যবহার দেখে, ব্যবহারকারীরা এই প্ল্যাটফর্মগুলিতে গড়ে প্রতিদিন যথাক্রমে ৪০ বা ৩৫ মিনিট সময় ব্যয় করে। স্ন্যাপচ্যাট এবং ইনস্টাগ্রাম ফলোয়ার, লিংকডইন এবং পিন্টারেস্টে ব্যয় করা সময় কম তবে এটি এখনও যথেষ্ট।

টুইটারে খুব তীব্র ব্যবহারকারীদের ছোট গোষ্ঠী থাকলেও গড়ে তার ব্যবহারকারী বেস থেকে সীমিত ইন্টারঅ্যাকশন দেখতে পায়।

আমরা এতোক্ষণ সবচেয়ে বড় প্ল্যাটফর্মগুলি নিয়ে আলোচনা করেছি, তবে অবশ্যই, আরও অনেক নেটওয়ার্ক রয়েছে৷

আমরা ফ্রেড কাভাজার কাজ দেখেছি, আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকে তাদের নির্দিষ্ট ফোকাস দ্বারা শ্রেণীবদ্ধ করতে পারেন৷ উদাহরণস্বরূপ, কিছু পাবলিকেশনের উপর ফোকাস করে, অন্যরা শেয়ারিং, মেসেজিং, আলোচনা এবং সহযোগিতা বা নেটওয়ার্কিংয়ে উপর। আপনি নির্দিষ্ট শ্রোতা এবং আগ্রহের উপর ভিত্তি করে সোশ্যাল মিডিয়াকে শ্রেণীবদ্ধ করতে পারেন।

উদাহরণ স্বরূপ বিহ্যান্সের মতো নিশ প্ল্যাটফর্মগুলি শিল্পীদের একত্রিত করার উপর ফোকাস করে। টুইচের মত প্ল্যাটফর্ম গেমার এবং হাউজ (Houzz) স্থপতি এবং ডিজাইনার বা যারা তাদের বাড়ি তৈরি বা উন্নত করছে তাদের নিয়ে কাজ করে। এই ধরনের নিশ গোষ্ঠীগুলি তারা যে প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বিক্রি করে তার উপর নির্ভর করে মার্কেটারদের কাছে খুব আকর্ষণীয় হতে পারে।

তাই আপনার ইন্ড্রাস্ট্রি বা স্থান কোন প্ল্যাটফর্মে কাজ করে তা বোঝা আপনাকে আপনার কাস্টমার বেস খুঁজে পেতে সাহায্য করতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলিকে বর্ণনা এবং শ্রেণীবদ্ধ করার অনেকগুলি বিভিন্ন উপায় রয়েছে৷ কিন্তু এমন কয়েকটি প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যা আপনাকে একজন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার হিসাবে বুঝতে হবে।

পরবর্তী অধ্যায়ে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি নিয়ে বিস্তারিত আলোচরা হবে, তাদের ব্যবহারকারী কারা এবং তারা কীসের জন্য তা ব্যবহার করে৷ এবং তারা মার্কেটারদের জন্য যে সুযোগগুলি অফার করে তাও জানবো।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.