ফাস্ট ইম্প্রেশন ইজ ইয়োর লাস্ট ইম্প্রেশন

প্রথম ইম্প্রেশন সবসময় সবক্ষেত্রে ম্যাটার করে। ইংরেজিতে এ জন্যই বলে ‘ফার্স্ট ইম্প্রেশন ইজ দ্য লাস্ট ইম্প্রেশন’, মানে প্রথম দর্শনই মুখ্য। তাই সব সময় সতর্ক থাকুন তবে ঘাবড়াবেন না। চিন্তামুক্ত থাকুন, দীর্ঘশ্বাস নিন। মাথা থেকে সবধরনের দুশ্চিন্তা ঝেড়ে ফেলুন। আত্মবিশ্বাসে ভরপুর সুন্দর হাসিমুখ নিয়ে কাজে মেতে থাকুন।

থাকুন কনফিডেন্ট

ভালো ইম্প্রেশন তৈরি করার আসল চাবিকাঠি কনফিডেন্স। তাই সবসময় আত্মবিশ্বাস রাখুন। নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস থাকলে, অন্যদের আপনার প্রতি বিশ্বাস জন্মাতে সময় লাগবে না। তাই, অফিস হোক বা কোন গেটটুগেদার থাকুন কনফিডেন্ট। তবে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস কিন্তু ভালো নয়। হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভাবনা শতভাগ।

সব সময় মাথা ঠাণ্ডা রাখুন

যে কোন পরিস্থিতিতে শান্ত থাকুন। কোনও সমস্যায় পড়লে বুদ্ধি কাজে লাগান। মেজাজ কাবুতে রাখতে পারলে, উপস্থিত বুদ্ধি দিয়ে অনেক বড় সমস্যারও সমাধান করা সম্ভব।

থাকুন নিজের মত

আপনি স্বতন্ত্র। তাই আপনি আপনার মত থাকুন। শুধুমাত্র অন্যকে ইমপ্রেস করার জন্য অন্য মানুষ হয়ে যাবেন না। যাঁর আপনাকে পছন্দ করার সে, আপনি যেমন, সেভাবেই পছন্দ করবে। তাই সক্রিয়তা হারাবেন কখনও।

বডি ল্যাঙ্গুয়েজ

কথাবার্তা বলার সময় আমাদের দেহও কথা বলে। তাই নিজেকে উপস্থাপন করতে টনিকের কাজ করে আপনার বডি ল্যাঙ্গুয়েজ। সবক্ষেত্রেই বডি ল্যাঙ্গুয়েজ খুব জরুরী। একটু সচেতন হয়ে যদি বদলে ফেলা যায় এই বডি ল্যাঙ্গুয়েজগুলো তাহলে সহজেই নিজেদের প্রভাব বিস্তার করতে পারবেন অন্যের উপর। আপনার ব্যক্তিত্ব যেন সৌম্য হয়। কোনও পরিস্থিতিতেই রুঢ় হবেন না। বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ করবেন সবার সঙ্গে। মাথায় রাখবেন সবাই একরকম নয়। যাঁর সঙ্গে কথা বলছেন তিনি যেমন সেটা মাথায় রেখে মিশুন।

স্বাভাবিক থাকুন

সব সময় স্বাভাবিক থাকার চেষ্টা করুন। কিছু বদ অভ্যাস যেমন- নখ খাওয়া কিংবা বার বার চুলে আঙুল চালানো কিন্তু আপনার আত্মবিশ্বাসের ক্ষেত্রে প্রশ্ন তুলে। এমন কিছু করবেন না যাতে অন্যেরা দেখা মাত্র বুঝে যায় আপনি অস্থির হয়ে পড়ছেন, হারাচ্ছেন আত্মবিশ্বাস।

ইংলিশ ইজ মাস্ট

সবাই আপনার নেটিভ ল্যাংগুয়েজ কিংবা আঞ্চলিক উচ্চারণ নাও বুঝতে পারে। তাই প্রমিত ভাষায় কথা বলুন। তাছাড়া কর্পোরেট দুনিয়ায় ইংরেজি খুব জরুরী। তাই আপনার স্পোকেন ইংলিশ যেন ভালো হয় সেটা মাথায় রাখুন। আধ ভাঙা ইংরাজি বললে খুবই বাজে ইম্প্রেশন তৈরি হয়।

নিজের সেরাটা দিন

‘আগামীকাল’ কখনও আসে না। তাই প্রতিদিন নিজের সেরাটা দিন। যতটা ভালোভাবে নিজেকে তুলে ধরতে পারবেন ততটা ভালো করে তুলে ধরুন। সেটা জামাকাপড় হতে পারে, সাজসজ্জা হতে পারে। ব্যবহারের ক্ষেত্রেও এটা শতভাগ প্রযোজ্য।

থাকুন পরিষ্কারপরিচ্ছন্ন

ভীষণভাবে গুরুত্বপূর্ণ হল পরিষ্কারপরিচ্ছন্ন থাকা। রোজ গোসল করা কিংবা ব্রাশ করার কথা নিশ্চয়ই বলে দিতে হবে না। তবে পারফিউম ও মাউথ ফ্রেশনার ব্যবহার করতে ভুলবেন না। পরিষ্কার জামাকাপড় পড়বেন। নেশা করে কোথাও না যাওয়াই ভালো।

হাসিমুখ

সব সময় হাসিখুশি থাকুন। আপনি হাসিখুশি থাকলে তা আপনার ব্যক্তিত্বয় অন্য মাত্রা এনে দিতে পারে। তাই মন ভালো রাখুন।

ফোকাস ঠিক রাখুন

আপনার ফোকাসটা ঠিক রাখুন। যাঁর সঙ্গে কথা বলছেন আপনার ফোকাস তার দিকেই রাখুন। অন্যমনস্ক হবেন না। এমন করলে আপনার সম্ভন্ধে বাজে ধারণা জন্মাবে।

কথা বলতে দিন

শুধু আপনিই বলে যাবেন। অন্যদের কথা শুনবেন না – এমন কখনও করবেন না। অন্যদেরও কথা বলার সুযোগ দিন। তাদের কথার মাঝখানে ইন্টারাপ্ট করবে না। জাহির করতে যাবে না আপনার ‘জ্ঞান’। তাহলে পরের বার সে আপনাকে এড়িয়ে যাবে।

ইন্টারেস্টিং

নিজেকে জ্ঞানী বোঝানোর জন্য কোনও মাথা-মুণ্ডু না রেখে- যা ইচ্ছা বলে গেলেন, সেটা কখনও কারো মনে ভালো প্রভাব ফেলতে পারে না। তাই নিজের কথা মার্জিত করুন এবং কথোপকথনকে ইন্টারেস্টিং করুন। তাহলেই দেখবেন আপনার ইম্প্রেশন জমছে।

You May Also Like

About the Author: Shams Biswas

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.